Tuesday, 2 February 2016

মালয়েশিয়ায় বিদেশি শ্রমিকদের কর বাড়ানোর প্রতিবাদ

মালয়েশিয়ায় বিদেশি শ্রমিকদের কর বাড়ানোর প্রতিবাদ



কুয়ালালামপুর: কোন ধরনের আলোচনা ছাড়াই বিদেশি শ্রমিকদের ওপর কর বাড়ানোর কড়া সমালোচনা করেছে মালয়েশিয়ার ৫৫টি স্থানীয় ইন্ড্রাস্ট্রির চেম্বার এবং ট্রেড অর্গানাইজেশন।

সরকারের রাজস্ব বাড়ানোর অংশ হিসেবে বিদেশি শ্রমিকদের কর বাড়ানোর এই পদক্ষেপে অসন্তোষ প্রকাশ করে এই ব্যবসায়িক সংগঠনগুলো।  এসোসিয়েটেড চায়নিজ চেম্বারস অব কমার্স এন্ড ইন্ড্রাস্ট্রি মালয়েশিয়ার ডেপুটি সেক্রেটারি জেনারেল তেও চিয়াং কক বলেন, আমরা এর আগে অনেক সভা, বৈঠকে বলেছি, রাজস্ব বাড়ানোর প্রক্রিয়া হিসেবে কখনোই বিদেশি শ্রমিকদের ওপর কর বাড়ানো উপায় হতে পারে না। বরং বিদেশি শ্রমিকদের প্রশিক্ষণ এবং মানোন্নয়নে গুরুত্ব দেয়া উচিৎ।

এই ব্যবসায়িক গোষ্ঠীটি আরও জানায়, বরং অবৈধ শ্রমিকদের বৈধ করা রাজস্ব বাড়ানোর একটি প্রক্রিয়া হতে পারে।

৪০ লাখ অবৈধ বিদেশি শ্রমিককে বৈধতা দেয়ার মধ্য দিয়ে সরকার ৫শ’ কোটি মালয়েশীয় রিঙ্গিত অতিরিক্ত আয় করতে পারবে বলেও মত দেন তেও চিয়াং কক।

এই মাসের শুরুতেই মালয়েশিয়া সরকারের পক্ষ থেকে জানানো হয়, ম্যানুফ্যাকচারার্স এবং নির্মাণ কোম্পানিগুলোকে প্রতি বিদেশি শ্রমিকের জন্যে বাৎসরিক আড়াই হাজার রিঙ্গিত কর দিতে হবে। এর আগে এই কর ছিল ১২৫০ রিঙ্গিত। দেশটির উপ-প্রধানমন্ত্রী জাহিদ হামিদি জানুয়ারির ৩১ তারিখ জানান, এই নতুন কর ব্যবস্থায় সরকার আড়াইশ’ কোটি রিঙ্গিত রাজস্ব আয় করবে।

মালয়েশিয়ায় নিবন্ধিত বাংলাদেশি শ্রমিকের সংখ্যা প্রায় ৬ লাখ। ধারণা করা হয় অবৈধ বাংলাদেশি শ্রমিকের সংখ্যা এর দ্বিগুণ হতে পারে।

বাংলাদেশ সময় ১৬০২ ঘণ্টা, ফেব্রুয়ারি ০২, ২০১৬

Monday, 1 February 2016

পুরো কোরআন মুখস্থ করেছে ইংল্যান্ডের ৭ বছর বয়সী মারিয়া

পুরো কোরআন মুখস্থ করেছে ইংল্যান্ডের ৭ বছর বয়সী মারিয়া

186685_1

গ্রেট ব্রিটেনের লোটন অঞ্চলের ৭ বছর বয়সী মেয়ে মারিয়া (maariya) পুরো কোরআন মুখস্থ করে বিস্ময়ের জন্ম দিয়েছে। তাকে নিয়ে ব্রিটেনভিত্তিক ওয়েবসাইট ইলমফিড.কম (ilmfeed.com) একটি অনুপ্রেরণামূলক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। রফিক ইবনে জোবায়েরের করা ওই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মারিয়া যুদ্ধ কবলিত সিরিয়ার জন্য অর্থ সংগ্রহের লক্ষে একটি দাতব্য প্রতিষ্ঠানের ব্যবস্থাপনায় সূরা ইয়াসিনের প্রতিযোগিতার অংশ নেয়। তখন তার বয়স ছিল মাত্র ৫ বছর। সে ওই প্রতিযোগিতায় অংশ নিতে দ্রুততম সময়ে সূরা ইয়াসিন মুখস্থ করে ফেলে। তার মুখস্থ করার অসাধারণ দক্ষতার প্রেক্ষিতে তাকে স্থানীয় একটি মাদ্রাসায় ভর্তি করা হয়। এখানে সে মাত্র দুই বছরে পুরো কোরআন অত্যন্ত সুন্দরভাবে মুখস্থ করতে সক্ষম হয়।maariya1_820261425মারিয়ার মায়েরও লক্ষ্য ছিল, সে যেন দ্রুত কোরআন মুখস্থ করতে সক্ষম হয়। তাই মারিয়াকে হাফেজ বানানোর জন্য তাকে গাইড করতে থাকে। তার ভাষায়, ‘মারিয়া যদিও কোরআনের অর্থ উপলব্ধি করে না, কিন্তু সে খুব ভালোভাবে মুখস্থ করতে পারে। কোরআনের অর্থ ও ব্যাখ্যা বুঝার জন্য অনেক সময় রয়েছে। কিন্তু এখন সে মুখস্থ করুক। এ ধারণা থেকেই আমি তাকে মুখস্থ করার প্রতি বেশি জোড় দেই। যদিও কাজটি খুব সহজ ছিল না। আমাকে এবং মারিয়াকে এ জন্য অনেক পরিশ্রম ও ‍ধৈর্যধারণ করতে হয়েছে। আমি মহান আল্লাহর দরবারে কৃতজ্ঞ যে, আমার আবেগ সফলতার মুখ দেখেছে।’ মারিয়া দৈনিক ৫ ঘণ্টা পবিত্র কোরআনের নতুন অংশ মুখস্থ করত। এর পর বাকি সময় পেছনের পড়াগুলো পুনরাবৃত্তি করতো। এর ফাঁকে অন্যান্য কাজগুলো করতে হতো। একটি কঠিন কার্যতালিকা তাকে অনুসরণ করতে হয়েছে কোরআন মুখস্থ করার সময়। মারিয়াকে কোরআন মুখস্থের প্রতি অনুপ্রাণিত করার জন্য তার মা, কোরআনে কারিমে কিছু অংশ মুখস্থ হয়ে গেলেই তাকে কিছু একটা উপহার দিয়ে উদ্দীপ্ত করতেন। সেই পুরস্কারগুলো হতো একটি খেলনা, একটি রং বই অথবা ভালো কোনো রেস্টুরেন্টের খাবার। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে মারিয়াই পুরস্কার কী হবে সেটা নির্বাচন করতো। মাত্র দুই বছরে পুরো কোরআন মুখস্থ সম্পন্ন হলে তার হিফজ সমাপনী উপলক্ষে একটি অনুষ্ঠান করা হয়। ওই অনুষ্ঠানে মারিয়াকে তার কৃতিত্বের জন্য বিশেষ ধন্যবাদ প্রদান করা হয়। অনুষ্ঠানে উপস্থিত মানুষের অনুরোধে কোরআনে কারিমের বেশ কিছু অংশ থেকে তেলাওয়াত করে শোনায় মারিয়া। মারিয়ার মা তার মেয়ের সাফল্য বেশ গর্বিত।

Sunday, 31 January 2016

অবৈধ প্রবাসীদের হারুন খবর




কুয়ালালামপুর: আগে বিদেশি শ্রমিক এবং কর্মচারীদের ৬ ক্যাটাগরির কর ব্যবস্থা থাকলেও এখন থেকে ২
ক্যাটাগরির কর ব্যবস্থা থাকবে মালয়েশিয়ায়। পহে‍লা ফেব্রুয়ারি থেকে এ নিয়ম কার্যকর হবে।

রোববার (৩১ জানুয়ারি) সারওয়াকের ইউনিভার্সিটি কলেজ অব টেকনোলজি’তে মালয়েশিয়ার উপ-প্রধানমন্ত্রী ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জাহিদ হামিদি এ কথা জানান।

তিনি বলেন, প্রথম ক্যাটাগরির ভেতরে রয়েছেন কারখানা, নির্মাণ শ্রমিক এবং সেবাদানকারী শিল্পে কর্মরত বিদেশি শ্রমিকরা। তাদের কর ধরা হয়েছে আড়াই হাজার রিঙ্গিত।

দ্বিতীয় ক্যাটাগরিতে রয়েছেন প্লান্টেশন এবং কৃষি খাতে কর্মরত বিদেশি শ্রমিকরা। তাদের বার্ষিক কর ধরা হয়েছে দেড় হাজার রিঙ্গিত।

আর বিদেশি গৃহকর্মীর জন্য কর্তাকে আগের মতোই প্রতিজনের জন্যে ৪১০ রিঙ্গিত কর দিতে হবে।

তবে এই মুহুর্তে বিদেশি প্রফেশনালদের ওপর বার্ষিক করের বোঝা চাপানোর পরিকল্পনা সরকারের নেই, জানান জাহিদ। নিউ স্ট্রেইটস টাইমস’র এক সংবাদে এ তথ্য প্রকাশ করা হয়।

প্রধানমন্ত্রী নাজিব রাজাক জানিয়েছেন ২০১৬ সালের বাজেটে দেশের অবৈধ বিদেশি শ্রমিকদের বৈধতা দেওয়ার কথা ভাবছে মালয়েশিয়া। এই বৈধতা দেওয়ার প্রক্রিয়ার ফলে কর হিসাবে সরকার ২৫ লাখ রিঙ্গিত আয় করবে।

বাংলাদেশ সময় ২০১২ ঘণ্টা, জানুয়ারি ৩১,

Saturday, 2 January 2016

মা আমি চলে যাচ্ছি .........!!

আমাকে হাজার সালাম "মা"

সেই ২০০৮ সালের কথা। 
ছেলেটি যখন বিদেশে / মালায়শিয়া যাব এই কথা মাকে বলল ,কখন তার মার মুখের দিকে তাকিয়ে দেখিল, মায়ের মুখটা কেমন জানি কালো হয়ে গেছে ! মা,আস্তে স্বরে আমাকে বলল!
বিদেশ কেন, বাবা?
আমরা তো গরিব, আর বিদেশ যেতে হলেত অনেক টাকার দরকার। সেই টাকা পাব কোথায়??
মা তুমি কোন চিন্তা করিও না। তুমি শুধু দোয়া কর মা।
বিদেশ যাবার টাকা মামা আর কাকাদের কাছ থেকে আনব মা। পরে তাদের টাকা সুদ করে দিব মা।
ছেলেটি যখন এই কথা মাকে বলছিল কখন মায়ের চোখের দিকে দৃষ্টি দিয়ে দেখিল, তার মায়ের এক চোখে জল / পানি পড়ছে। মায়ের চোখের পানি দেখে ছেলেটি কিছু আর বলতে পারছিল না।
কখন মা অনেক কেঁদেছে।
ছেলেটি ককখন ভাব ছিল মা এমন ভাবে কাঁদছেন কেন? 
মাকে প্রশ্ন করল, মা তুমি কাঁদছ কেন??
মা চোখের পানি মুছে বল!  
ঐ পাশের বাড়ীর হাবিব বিদেশ গিয়ে আর ফিয়ে আসেনি!!

ওহ মা এই কথা!

তুমি শুধু দোয়া কর মা !
 তোমার ছেলে ,তোমায় কুলে ফিয়ে আসব মা ।
আর আমার জন্য দোয়া করিও মা, আমি অনেক টাকা কামাইব।
আমাদের এই দারিদ্রতা আর থাকবেনা মা
হঠাত একদিন সে বিদেশে চলে গেল ।

মায়ের ছটো ছেলে তার মাকে সে খুব ভালোবাসত। নিজের জীবন এর চেয়ে বেশি।
ছেলেটা বিদেশ এ থাকে সে তার মাকে এক সপ্তাহে ৬ দিন ই ফোন করে কথা বলত।
তার মা তাকে বলে কিরে বিদেশ এ গেচ্ছিস টাকা কামাইতে। তুই আমাকে এত ফোন করিস কেনো। দেখ বাবা অজথা টাকা খরচ করিস নাহ।
সে বলল মা তোমাকে আমি খুব ভালোবাসি। যাক নাহ টাকা কি হইছে। আমি আবার টাকা রোজগার করব। মা কিছুই বলতে পারছে নাহ। ওকে আমার পাগল বাবা যা ফোন করিস। ছেলেটা একটা হাসি দিল আর বলল এইতো আমার লক্ষি মা।
কিছুদিন যাবার পর তার মা খুব অসুস্থ হয় তার মা অসুস্থর কিছুদিন পর মারা যায়। তার বাবা মার পাগল ছেলেকে বলতে নাহ করল। তার বাবা যানে পাগল ছেলে কে বললে সে খুব দুংখ পাবে আর দেশে চলে আসবে।
সেইদিন রাতে ছেলে সপ্ন দেখল তার মা তাকে বলছে বাবা আমি চলে জাচ্ছি রে। ছেলের ঘুম ভাংল সাথে সাথেই তার মাকে ফোন করল। তার বাবা ফোন ধরল। বাবা কান্না করছে তার পাগল ছেলে বুজতে পারছে তার মার কিছু একটা হয়েছে। বাবা মা কে ফোন দাও বাবা তার বড় ছেলে কে ফোন দিল বলল নে তোর ভাইয়ের সাথে কথা বল। হে ভাইয়া মা কে দাও ভাই মা একটু অসুস্থ রে মা ঘুমাচ্ছে কাল কথা বলিস। এই বলে ফোনটা কেটে দিল।
মায়ের পাগল ছেলে আবার ঘুমাতে গেল আবার সেই সপ্ন দেখল। আবার ফোন করল আর বলল ভাইয়া আমি আসছি।
বাবা আর তা বড় ভাই এয়ারপট এ গেল। মায়ের পাগল ছেলে আসল। বাবা মা কথায় মা আসে নি। বাবা বলল চল বাসায় যাই। গাড়ি তে উঠল। বাবা নাও এই চেন টা মা কে দিবা।
# বাবা বলল :বাবা তুমি দিয়।
বাসায় আসল সবাই বলছে মায়ের পাগল আইসে রে মায়ের পাগল আইসে। ছোট ছেলে তার মার ঘরে গেল।
ছেলে : মা ও মা তুমি কোথায় দেখ আমি আসছি। মার কোনো সারা নেই
ছেলে : বাবা ও বাবা মা কই।
বাবা : তোর মা কোথায় দেখবি আয় আমার সাথে মায়ের কবর এর কাছে নিয়ে গেল। এই যে তোর মা এখানে ঘুমিয়ে আছে।
ছেলে : মা ও মা তুমি উঠো দেখ আমি আসছি। দেখ তোমার পাগল আইসে। মা ও মা কথা বল। মা মা গো দেখ আমি কিন্তু রাগ করব

Friday, 1 January 2016

মায়ের পরিচয়

প্রথমেই আমার সালাম, আসসালামু আলাইকুম !! আশা করি সবাই ভাল আছেন।
আমিও মহান আল্লাহ তা'আলার রহমে ভাল আছি ।
মুল কথা ::

যার জন্য এবং যার উচিলা আপনে আমি এবং আমরা সবাই এই সুন্দর পৃথিবীরর আলো বাতাস দেখতে পেয়েছি, তিনি হলেন আমার,আপনার এবং আমাদের সবার প্রিয় "মা"।
এই মায়ের ঋণ সুদ করার কারু সাথ্য নাই।
সুতরাং আমাদের উচিৎ মায়ের সাথে সবসময় ভাল ব্যবহার করা। মাকে কষ্ট দিয়ে এই পৃথিবীতে কেউ সুখি হতে পারেনি আর পারবেও না। কেননা মায়ের মত এত কষ্ট এই পৃথিবীতে আর একজন নাই।


মায়ের সাথে কখনো...!!